আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে বাড়ছে নারীর সংখ্যা

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে বাড়ছে নারীর সংখ্যা

ঢাকা: গণ-প্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশ অনুসারে বাধ্যবাধকতা পূরণ করতে এবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে বাড়ছে নারীর সংখ্যা। জানা গেছে, যোগ্য নারীদের বিষয়ে খোঁজখবর চলছে। এদিকে, কেন্দ্রীয় কমিটিতে পদ পেতে তৎপরতা চালাচ্ছেন সাবেক ছাত্রনেতাসহ অনেকেই। গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশ অনুসারে, নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোকে ২০২০ সালের মধ্যে তাদের কমিটিতে ৩৩ শতাংশ নারীর প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করতে হবে। যদিও দেশের প্রাচীন রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের ৮১জনের কেন্দ্রীয় কমিটিতে এ মুহূর্তে রয়েছেন ১৫ জন নারী।

এই বাধ্যবাধকতা পূরণ করা সম্ভব হবে না উল্লেখ করে নারীর সংখ্যা বাড়ছে বলে জানালেন আওয়ামী লীগ নেতারা। আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সট: কর্নেল (অব:) ফারুক খান বলেন, ‘আমাদের কমিটমেন্ট আছে যে সেন্ট্রাল কমিটিসহ প্রতিটি কমিটিতে নারী নেতৃত্ব আমরা বাড়াবো। অনেকে সেন্ট্রাল কমিটিতে আসবে। সেন্ট্রাল কমিটিতে নারীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে বলে আমি মনে করি।’

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ বলেন, ‘আওয়ামী লীগে নারী নেতৃত্ব আগের থেকে অনেক বেশি দেখতে পাচ্ছি। আমাদের ২১তম সম্মেলনের মাধ্যমে এ সংখ্যা আরও বাড়ানো হবে। তবে এখনই আমরা ৩৩ ভাগে যেতে পারবো না।’

আর, কমিটিতে নারী সদস্য নির্বাচনে বেশকিছু বিষয় প্রাধান্য পাবে-১. ছাত্র রাজনীতিতে বিভিন্ন সময়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। ২. মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ বুদ্ধিজীবী পরিবারের সন্তান। ৩. বারবার মনোনয়নবঞ্চিত ত্যাগী রাজনীতিক। ৪. তরুণ সমাজের কাছে গ্রহণযোগ্য ও উচ্চশিক্ষিত নারী। সম্মেলনকে ঘিরে পদ প্রত্যাশীরা প্রতিদিনই ভীড় করছেন আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে।