কতোটা ভূমিকা রাখছে আধুনিক প্রেক্ষাগৃহ?

কতোটা ভূমিকা রাখছে আধুনিক প্রেক্ষাগৃহ?

বিনোদন প্রতিবেদক: একটা সময় দেশে প্রেক্ষাগৃহের সংখ্যা ছিলো ১৪শ’র বেশি। কমতে কমতে যা এখন এসে ঠেকেছে দেড়শোর নিচে। এই যখন অবস্থা তখন সেই অন্ধকারে সিনেপ্লেক্স যেনো আলোরই গল্প। তবে দেশীয় সিনেমার জন্য এই আধুনিক প্রেক্ষাগৃহ কতোটা ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে অভিযোগের কাঠগড়ায় আছে সেই প্রশ্নও।

দেশে ক্রমাগত কমছে প্রেক্ষাগৃহের সংখ্যা। তালিকায় সবশেষ সংযোজন পল্টনের রাজমণি ও রাজিয়া। একটা সময় রাজধানীর অনেকের কাছেই অন্যতম বিনোদন কেন্দ্র ছিলো এই প্রেক্ষাগৃহ দুটি। তবে লোকসানের কারণে সেই হল ভেঙেই এবার নির্মিত হতে যাচ্ছে বহুতল বাণিজ্যিক ভবন। প্রেক্ষাগৃহের যখন এমন বেহাল হাল তখন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টদের শঙ্কার জায়গায় আশার আলো সিনেপ্লেক্স। একদিকে হল কমলেও বাড়ছে সিনেপ্লেক্সের সংখ্যা যদিও তা যৎসামান্যই।

তবে সিনেপ্লেক্সের এই চিত্রনাট্যেও রয়েছে ক্লাইম্যাক্স যেখানে বাংলা কম বরং হলিউড সিনেমাই প্রদর্শিত হচ্ছে বেশি। এমন অভিযোগে উঠে এলো সিনেপ্লেক্স মালিকদের সদিচ্ছার অভাবের কথাও। সিনেপ্লেক্সকে দেশীয় চলচ্চিত্রের জন্য ইতিবাচক মানলেও তার টিকিটের মূল্য নির্ধারণে সাধারণের ক্রয় ক্ষমতা বিবেচনার দাবি এই নেতৃবৃন্দের।