একই পরিচালকের তিন নাটকে মেহজাবিন চৌধুরী

বিনোদন প্রতিবেদক: টিভি নাটকের এই সময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী, দর্শকের প্রিয় মুখ মেহজাবিন চৌধুরী। গেলো সপ্তাহে তিনি তরুণ মেধাবী নাট্যপরিচালক মহিদুল মহিমের পরিচালনায় ‘ইনসিকিউরিটি’ নাটকের কাজ শেষ করেছেন। এ নাটকটির গল্প ভাবনা মাসুদুল আলমের এবং রচনা-পরিচালনা মহিদুল মহিমের। একই পরিচালকের আরো দুটি নাটকের কাজ করছেন তিনি গেলো ২০ অক্টোবর থেকে। মাসুদুল আলমের রচনা ও মহিদুল মহিমের পরিচালনায় মেহজাবিন শেষ করেছেন ‘ফ্ল্যাট বি টু’র কাজ। আজ মেহজাবিন মহিদুল মহিমের রচনা ও পরিচালনায় ‘জেব্রা ক্রসিং’ নাটকের কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকবেন। বলা যায় এবারই প্রথম একই পরিচালকের তিনটি নাটকে টানা কাজ করছেন মেহজাবিন চৌধুরী।

নাটকগুলোতে কাজ করা প্রসঙ্গে মেহজাবিন চৌধুরী বলেন, ‘মহিম ভাই যেহেতু নিজেই নাটক রচনা করেন তাই ভিন্ন ধরনের গল্প নিয়ে ভাবনা থাকে তার। যে কারণে একটু ভিন্ন ধরনের গল্পই পেয়ে থাকি তার কাছে। আর নির্দেশক হিসেবে তার ভাবনার জায়গাটায় বেশ নতুনত্বই আছে। জেনে বুঝে গুছিয়ে কাজ করার চেষ্টা করেন। দর্শকে একটি ভালো কাজ উপহার দেবার চেষ্টা করেন। ইনসিকিউরিটি, ফ্ল্যাট বি টু, জেব্রা ক্রসিং-তিনটি নাটকেরই গল্প সুন্দর। প্রচারে এলে নিশ্চয়ই দর্শকের ভালোলাগবে।’ মহিদুল মহিম এর আগেও মেহজাবিনকে নিয়ে অনেক নাটক নির্মাণ করেছেন।

মেহজাবিন প্রসঙ্গে মহিম বলেন, ‘সত্যি বলতে কী আমি যে ধরনের চরিত্রগুলো রচনা করি সেই ধরনের চরিত্রে পারফেক্ট মেহজাবিন আপু। কারণ একজন অভিনেত্রী হিসেবে তার সেই দক্ষতা আছে যে আমি তাকে যে চরিত্রেই অভিনয়ের জন্য চূড়ান্ত করিনা কেন তিনি সেই চরিত্রই ফুটিয়ে তুলতে পারবেন। তাই তাকে নিয়েই কাজ করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি আমি।’

পরিচালক জানান তিনটি নাটকই শিগগিরই বিভিন্ন স্যাটেলাইট চ্যানেলে প্রচার হবে। মহিদুল মহিম নির্দেশিত মেহজাবিন অভিনীত দর্শকপ্রিয় নাটকের মধ্যে রয়েছে ‘গোলাপী কামিজ’,‘ মন বদল’ ও ‘ভাই প্রচুর দাওয়াত খায়’। এছাড়া তার নির্দেশনায় মেহজাবিন অভিনয় করেছেন ‘রং বদল’,‘ আনোয়ার দ্য প্রোডাকসন বয়’,‘ লাভ বাবু’,‘ এই শহরে ভালোবাসা নেই’,‘ প্রশংসায় পঞ্চমুখ’ ইত্যাদি।

এদিকে চলতি সপ্তাহেই মেহজাবিন চৌধুরী একটি রিয়েল এস্টেট কোম্পানীর বিজ্ঞাপনে মডেল হিসেবে কাজ করেছেন। এছাড়াও এরইমধ্যে নাফিজের পরিচালনায় একটি ডিটারজেন্ট পাউডারের বিজ্ঞাপনেও মডেল হিসেবে কাজ করেছেন। মেহজাবিন চৌধুরীর ইউটিউব চ্যানেল ‘মেহজাবিন চৌধুরী’র সাবস্ক্রাইবার এখন সাড়ে তিন লাখেরও বেশি।