গিটারের জাদুকর আইয়ুব বাচ্চুকে হারানোর প্রথম বছর আজ

বিনোদন ডেস্ক: রুপালী গিটার ফেলে ২০১৮ সালের আজকের দিনে হৃদরোগের আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে আকস্মিকভাবে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে চলে যান সেই তারা ভরা রাতের আকাশে। চলে গেলেও একজন্মহীন নক্ষত্রের মতোই জেগে আছেন কোটি মানুষের হৃদয়ে।

তিনি ছিলেন একাধারে গায়ক, লিড-গিটারিস্ট, গীতিকার, সুরকার ও প্লেব্যাক শিল্পী। এলআরবি ব্যান্ড দলের লিড গিটারিস্ট এবং ভোকাল আইয়ুব বাচ্চু বাংলাদেশের ব্যান্ড জগতের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও সম্মানিত ব্যক্তিত্বদের একজন। এর আগে তিনি দশ বছর সোলস ব্যান্ডের সাথে লিড গিটারিস্ট হিসেবে যুক্ত ছিলেন।

আইয়ুব বাচ্চুর সঙ্গীতজগতে যাত্রা শুরু হয় ফিলিংস ব্যান্ডের সঙ্গে ১৯৭৮ সালে। তাঁর কণ্ঠ দেয়া প্রথম গান ‘হারানো বিকেলের গল্প’। ১৯৮০ থেকে ১৯৯০ সালে তিনি সোলস ব্যান্ডের সাথে যুক্ত ছিলেন।

১৯৮৬ সালে তিনি প্রথম রক্তগোলাপ নামে একক অ্যালবাম প্রকাশ করেন। অ্যালবামটি তেমন সাফল্য না পেলেও সফলতার শুরু তার দ্বিতীয় একক অ্যালবাম ‘ময়না’ দিয়ে ১৯৮৮ সালে ।

১৯৯১ সালে আইয়ুব বাচ্চু এল আর বি ব্যান্ড গঠন করেন। ব্যান্ড গঠনের পর ১৯৯২ সালে ব্যান্ডের নামেই প্রথম অ্যালবাম প্রকাশ করেন। এই অ্যালবামের ‘শেষ চিঠি কেন এমন চিঠি’, ‘ঘুম ভাঙা শহরে’, ‘হকার’ গানগুলো ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে। পরে ১৯৯৩ ও ১৯৯৪ সালে তার দ্বিতীয় ও তৃতীয় ব্যান্ড অ্যালবাম ‘সুখ’ ও ‘তবুও’ বের হয়। সুখ অ্যালবামের ‘সুখ’, ‘চলো বদলে যাই’, ‘রূপালি গিটার’, ‘গতকাল রাতে’ উল্লেখযোগ্য গান। এর মাঝে ‘চলো বদলে যাই’ বাংলাদেশের সঙ্গীত জগতে অন্যতম জনপ্রিয় একটি গান। গানটির কথা ও সুর করেছেন বাচ্চু নিজেই।

১৯৯৫ সালে তিনি বের করেন তৃতীয় একক অ্যালবাম কষ্ট। এটি সর্বকালের সেরা একক অ্যালবাম বলে অবিহিত করা হয়। অ্যালবামটির প্রায় সবগুলো গানই জনপ্রিয়তা পায়। বিশেষ করে ‘কষ্ট কাকে বলে’, ‘কষ্ট পেতে ভালোবাসি’, ‘অবাক হূদয়’, ও ‘আমিও মানুষ’।

সে বছরই প্রকাশিত হয় তার চতুর্থ ব্যান্ড অ্যালবাম ঘুমন্ত শহর। ঘুমন্ত শহরের টাইটেল ট্রাক ভ্রান্ত পথিক বেইলি রোডে গানগুলোও মানুষের মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়ে। অনেক বাংলা ছবিতে প্লেব্যাক করেছেন আইয়ূব বাচ্চু। ‘অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে’ বাংলা ছবির অন্যতম একটি জনপ্রিয় গান। এটি তাঁর গাওয়া প্রথম চলচ্চিত্রের গান।

যদিও বাচ্চু সোলস ছেড়ে দিয়েছিলেন হার্ড রক গান করার জন্যে তবে একজন একক শিল্পী হিসেবে মূলত পপ রক ও সফট রক ঘরানার গান করতেন বাচ্চু। সংগীত জীবনের শুরু থেকেই আইয়ুব বাচ্চুর ব্লুজ, জ্যাজ ও ফাংক ঘরানার গানের প্রতি ছিলো প্রচণ্ড আগ্রহ৷

১৯৯৮ সালের শুরুর দিকে এবি কিচেন নামের একটি স্টুডিও ঢাকার মগবাজারে গড়ে তোলেন তিনি, যা পরবর্তীকালে একটি রেকর্ড লেবেলে পরিণত হয়। আইয়ুব বাচ্চু একজন একক শিল্পী হিসেবে একটি ডবল অ্যালবাম বের করতে চেয়েছিল।

এ ছাড়া অনেক মিশ্র অ্যালবামে কাজ করেছেন। এর মধ্যে প্রিন্স মাহমুদের সুরে করা মিশ্র অ্যালবামগুলোতে তাঁর গান আকাশছোঁয়া জনপ্রিয়তা পায়। তাঁর সেরা গানগুলো নিয়ে একটি অ্যালবাম বের করা হয়। প্লেব্যাক গায়ক হিসেবে চলচ্চিত্রেও গেয়েছেন। যেখানে তাঁর আম্মাজান গানটি বাংলা সিনেমার ইতিহাসের সবচেয়ে জনপ্রিয় গানগুলোর একটি ধরা হয়।