‘আমাদের চলচ্চিত্রকে আরও সমৃদ্ধ করতে হবে’

রুহুল আমিন ভূঁইয়া: সিনেমা তো হচ্ছে অনেক, কিন্তু তা মন ছুয়ে যাচ্ছে কি? আবার কয়টিই বা দর্শকের কাছে পৌছায়? বাংলা সিনেমার সংকটকাল। এমন সময়ে হতাশার খবর হচ্ছে চলতি মাসে সিনেমা নেই। অনেকটা নিরবেই থাকবে সিনেপর্দা। সিনেমার বাজারের এই স্থবিরতায় থমকে গেছেন চলচ্চিত্র প্রাযোজকও। দুই সপ্তাহ সিনেমা খরা কাটিয়ে অবশেষে মুক্তি পাচ্ছে শাহ আলম মণ্ডল পরিচালিত ‘ডনগিরি’ সিনেমাটি। ছবিটির কয়েকবার মুক্তির তারিখ ঠিক করলেও মুক্তি দেননি নির্মাতা। তবে এবার প্রেক্ষাগৃহের মুখ দেখতে চলেছে ছবিটি। আগামীকাল (১৮ অক্টোবর) মুক্তি পাচ্ছে ছবিটি।

মৌলিক গল্পের এই ছবিটিতে জুটি বেঁধে অভিনয় করেছেন আনিসুর রহমান মিলন, বাপ্পি চৌধুরী ও এমিয়া এমি। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে মুক্তি পায় আনিসুর রহমান মিলন অভিনীত সিনেমা ‘রাত্রির যাত্রী’। সাত মাস পর আবারো মুক্তি পাচ্ছে তার অভিনীত সিনেমা ‘ডনগিরি’। নাটকের বাইরে সারা বছরই সিনেমার কাজেও ব্যস্ত থাকেন এ অভিনেতা।

কিছুদিন আগে নোয়াখালীতে নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুলের পরিচালনায় ‘গাঙচিল’ সিনেমার শুটিং করেছেন তিনি। আগামী মাসেই এ সিনেমার কাজ শেষ হবে। এ ছাড়া অনিরুদ্ধ রাসেল ও ওয়াজেদ আলী সুমনের দুটি সিনেমায় চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। শিগগিরই সিনেমাগুলোর কাজ শুরু করবেন মিলন। এছাড়াও নাটকেও সমানতালে ব্যস্ততা যাচ্ছে তার।

মিলন বলেন, ‘দর্শকদের সব সময় মন খারাপ থাকে ভাল একটি সিনেমা দেখার। কিন্তু ভাল গল্পের সিনেমা সেভাবে দেখতে পায় না। তার পাশাপাশি আমাদের মা বোনদের একটা অভিযোগ আছে সুস্থ ধারার ছবি কোথায়? তবে সব কিছুই দর্শক খুঁজে পাবে ‘ডনগিরি’ ছবিতে। একটি সুস্থ ধারার চলচ্চিত্র বলতে যা বোঝায়। সকল দর্শকদের দেখার মতো একটি চলচ্চিত্র। সবাই হলে গিয়ে সিনেমাটি দেখবেন। আশা করি, সবার ভালো লাগবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘দর্শক প্রেক্ষাগ্রহে ফেরানোর জন্য শুধু চলচ্চিত্র নয়, এর সাথে আনুষাঙ্গিক বিষয়গুলোরও উন্নয়ন ঘটাতে হবে। যেমন- প্রেক্ষাগৃহের পরিবেশ উন্নত করতে হবে। এখানে তো মানুষ টিকেট কেটে একটু বিনোদন পাওয়ার আশায়ই যায়। এছাড়া পরিবার নিয়ে স্বাচ্ছন্দ্যে অভিনেতা কিংবা অভিনেত্রীদের অভিনয় উপভোগ করার জন্য যায়। তবে আমরা মূল যে বিষয়টাতে ফোকাস করতে চাই সেটি হল-‘আমাদের বাংলা চলচ্চিত্রকে আরও সমৃদ্ধ করা’।

এস এস কথাচিত্র ইন্টারন্যাশনাল প্রযোজিত ‘ডনগিরি’ ছবির কাহিনী ও চিত্রনাট্য করেছেন চিত্রনাট্যকার যোশেফ শতাব্দী। বাপ্পি ও এমিয়া এমি, মিলন ছাড়াও ছবিতে আরও অভিনয় করেছেন সাদেক বাচ্চু, মিশা সওদাগর সৈয়দ হাসান ইমাম, লায়লা হাসান, আলীরাজ, অরুণা বিশ্বাস, কাজী হায়াৎ, অমিত হাসান, জিয়া তালুকদার, রতন, এস আই ফারুক, কমল পাটেকর, রাজাউলসহ অনেকে।

ছবিটির নৃত্য পরিচালনা করেছেন মাসুম বাবুল, সাইফ খান কালু ও হাবিব। ইমন সাহার সংগীতে এ ছবির গানগুলোতে কণ্ঠ দিয়েছেন সাবিনা ইয়াসমিন, কুমার বিশ্বজিৎ, কনকচাঁপা, রুপম, লেমিস, পুলক, ইমরান, পড়শী ও হাসান ইমাম। ছবিটি প্রযোজনা করেছে এস এস কথাচিত্র ইন্টারন্যাশনাল।